মেনু নির্বাচন করুন

বাহুবল উপজেলা

বাহুবল উপজেলা

জনশ্রতি এবং প্রাচীন লোকদের নিকট থেকে প্রাপ্ত তথ্য বিভিন্ন সময়ে প্রকাশিত পত্র-পত্রিকা হতে জানা যায় প্রাচীনকালে কুদরত মাল নামক জনৈক পলোয়ান বাহুবল এলাকায় বাস করতেন। মৌলভীবাজার জেলার দক্ষিণ বাগ থেকে পলোয়ান এসে ছিলেন কুদরত মালের সংগে মলল যুদ্দ করতে। দু পলোয়ানের মধ্যে দীর্ঘক্ষণ মলল যুদ্দের পর কুদরত মাল বিজয়ী হয়ে বীর দর্পে বলেছিলেন ‘‘বাহুকা বল দেখ বেটা ’’এ ঘটনাটি একটি প্রবাদ প্রবচনে প্রকাশ করা হয়েছে। ‘‘দক্ষিণ বাগ থেকে আইলো মাল মিরমিরাইয়া চায়, কুদরত মালের ঘুষি খাইয়া গড়াগড়ি বায়’’। কিংবদন্তীর মলল যুদ্ধে ‘‘দেখ বাহুকাবল’’ থেকে  বাহুবল নাম হয়েছে বলে অনেক মনে করেন।

  শত বর্ষের প্রাচীন লোকদের মুখ থেকে শুনা যায় এক কালে অত্র এলাকার লোকজন ছিল খুবই শক্তিশালী ও বীরযোদ্ধা। তখনকার কেউ কোনরূপ ধারালো অসত্র ব্যবহার করত না বা ধারালো অসেত্রর ব্যবহার ছিল না। মারামারিতে ৩/৪ হাত লম্বা বড় একটি বাঁশের টুকরাই লাঠি হিসাবে ব্যবহার হতো। সে বাঁশের লাঠি যার হাত থেকে পরে যেত বা ভেংগে যেত সে হত পরাজিত। তার উপর আর কেউ আঘাত করত না। এছাড়া পাহাড়ের হিংস্র বাঘের সংগে অনেক সময় মানুষের হাতাহাতি যুদ্ধ হত। বাঘের হাত থেকে হরিণ ছিনিয়ে আনতেও লোকজন মোটেও ভয় পেত না। তাই এলাকার নির্ভীক মানুষের সাহসিকতা ও বীরত্বের পরিচয় হিসাবে ‘‘ বাহুবল ’’ নামের উদ্ভব হয়েছে বলেও ধারণা করা হয়।

অবস্থানঃ   উত্তরে- নবীগঞ্জ উপজেলা,  দক্ষিণে- চুনারঘাট উপজেলা,  পূর্বে- মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলা এবং পশ্চিমে হবিগঞ্জ সদর উপজেলা। রাজধানরি ঢাকা থেকে ১৮৫ কি মি: এবং হবিগঞ্জজেলা সদর হতে ২৫ কি.মি.পূর্ব দক্ষনে অবস্তিত। এতে ৭ টি ইউনিয়ন নিয়ে বাহুবল উপজেলার অবস্থান ।


Share with :
Facebook Twitter