মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

কার্যবিবরণী ও গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার

 উপজেলা পরিষদ

বাহুবল, হবিগঞ্জ

নবীগঞ্জ  উপজেলার  জুন-২০১4খ্রি. মাসের আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভার কার্যবিবরণীঃ

 

সভাপতি     :       মুহাম্মদ লুৎফর রহমান

             উপজেলা নির্বাহী অফিসার

                          বাহুবল :                                                 

                           ৩০/০৬/২০১৫খ্রি.

সময়         :       বেলা-১১.০০ঘটিকা

সভার স্থান   :       উপজেলা পরিষদ মিলনায়তন।

সভায় উপস্থিত সদস্য বৃন্দঃ পরিশিষ্ট ‘‘ক’’

সভাপতি উপস্থিত সকলকে স্বাগত জানিয়ে সভার কাজ শুরম্ন করেন। অতঃপর বিগত সভার কার্যবিবরণী সভায় পাঠ করে শুনানো হয় কোন সংশোধণী না থাকায় তা সর্ব সম্মতিক্রমে দৃঢ়ীকরণ করা হয়।

 

          

 

অফিসার ইন চার্জ, নবীগঞ্জ থানা  জানান যে, চলতি মাসে ১৩ টি মামলা হয়েছে।  তাছাড়াও মাদক মামলায় ২ জন এবং গরম্ন চুরির মামলায় ২ জন আসামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বিগত মাসের আলোচনা মতে এবং সিদ্ধামেত্মর আলোকে শিবপাশার পূর্ববর্তী ঘটনা দৃশ্যত বড় কোন ঘটনা নহে। আসলে দীর্ঘদিনের অভিমান এবং ক্ষোভের বহি প্রকাশ।  এ ঘটনায় ভবিষ্যতে যাতে আর কোন দ্বন্দ্বে জড়িত না হয় সে বিষয়ে কমিটমেন্ট পাওয়া গিয়েছে মর্মে সভায় অবহিত করেন। তবে তিনি তাও ব্যক্ত করেন যে, দীর্ঘদিনের ক্ষোভ আসেত্ম আসেত্ম শেষ হবে। এ  ছাড়া নবীগঞ্জ উপজেলার অন্যান্য ইউনিয়নের  সার্বিক আইন শৃংখলা পরিস্থিতি ভাল মমত্মব্য করে গত মাসের অপরাধ চিত্র সভায় তুলে ধরেন  ঃ

 

ক্রমিক নং

অপরাধের ধরণ

আলোচ্য মাস

পূর্ববর্তী মাস

গত বছরের অনুরম্নপ সময়

মমত্মব্য

০১

খুন

 

 

 

 

০২

ডাকাতি

 

 

 

 

০৩

দাঙ্গা

 

 

 

 

০৪

অপহরণ

 

 

 

 

০৫

নারী ও শিশু নির্যাতন

 

 

 

 

০৬

অগ্নি সংযোগ

 

 

 

 

০৭

রাহাজানি

 

 

 

 

০৮

এসিড নিÿÿপ

 

 

 

 

০৯

আইন-শৃঙ্খলা বিঘ্নকারী দ্রম্নত বিচার

 

 

 

 

১০

ধর্ষণ

 

 

 

 

১১

অস্ত্র আইন

 

 

 

 

১২

অন্যান্য

 

১৫

 

 

 

মোট

 

১৫

 

 

                                         

       আলোচনা ০১ঃ  আউসকান্দি নিখোজ ব্যক্তির লাশ পাওয়া সংক্রামত্ম আলোচনাঃ

                          অফিসার ইন চার্জ, নবীগঞ্জ থানা জানান যে, শিবপাশা এলাকায় বাছিত চৌধুরী নামে একজন ব্যক্তির দীর্ঘদিন খোজ ছিল না। যাকে অপহরন বলা যায় না। তার লাশ পাওয়া গিয়েছে। এ ব্যাপারে ৬(ছয়) জনকে গ্রেফতার করে  প্রধান ০৩ (তিন)  জনের ১৬৪ ধারায় জবান বন্দি গ্রহণ করা হয়েছে|

                                   এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার নবীগঞ্জ, হবিগঞ্জ জানান যে,শিবপাশায় পুলিশ ফোর্সের কার্যক্রম আরো বৃদ্ধি করতে হবে।  অবৈধভাবে যাতে কেহ দ্বন্দ্বে জড়িয়ে না পড়ে সে বিষয়ে কড়া নজরদারি রেখে পুলিশ বাহিনীকে বুদ্ধিমত্তা সহকারে অগ্রসর হতে হবে। তিনি আরো উলেস্নখ করেন যে,  ইউপি চেয়ারম্যানকে স্ব স্ব স্টেশনে থাকতে হবে। অনুপস্থিতকালীন সময়ে পরিষদের সদস্যদের মাঝে কাউকে দায়িত্ব প্রদানের বিষয়ে পরামর্শ প্রদান করা হয়। আইন শৃঙ্খলা সুরÿায় অনুপস্থিত কালীন দায়িত্ব প্রদানের গুরম্নত্ব রয়েছে মর্মে নির্দেশনা প্রদান করেন। তাছাড়া শিবপাশা বাজার এলাকার রাসত্মায় এলোপাতারি ভাবে গাড়ী পার্কিং সহ যত্র তত্র মালামাল গুছিয়ে রাখার বিষয়ে গ্রাম পুলিশ বাঁশি বাজিয়ে যানযট নিরসন করতে আউশকান্দি ইউপি চেয়ারম্যানের মাধ্যমে পরামর্শ প্রদান করেন। প্রাথমিকভাবে কোন কাজ না হলে প্রয়োজনবোধে স্থানীয় জনসাধারণের সহায়তায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা বরা হবে। মোবাইল কোর্ট পরিচালনার বিষয়ে আইনী সীমবদ্ধতা রয়েছে মর্মে সংশিস্নষ্ট সকলকে অবহিত করেন। এ ছাড়া তিনি আরো উলেস্নখ করেন যে, এ বিষয়ে সংশোধনী প্রসত্মাব সরকার বরাবরে পেশ করা হয়েছে। তাছাড়া সভায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার আরো উলেস্নখ করেন যে, সামনে রমজান মাস আসছে। খাবারের মান যাতে ঠিক থাকে সে বিষয়ে মোবাইল কোর্টের প্রয়োজন রয়েছে।

                                সভায় আউশকান্দি ইউপি চেয়ারম্যান জানান আউশ কান্দি পশ্চিমভাগ এলাকার ইতিপূর্বের দ্বন্দের বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। আশা করি  আলোচনা ফলপ্রসু হবে। তবে শিবপাশার লাশের  ব্যাপারে তিনি জানান অপহরণ বা হত্যা মামলা অতীতে কোন সময় ঘটেনি। তিনি সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করে জানান ২/৩ দিন বাড়ীতে লাশ রাখা হয়েছে। পরে হত্যাকারীরা খুনীর মা-বাবাকে শামত্মনা দিয়েছে যে জীবিত পাওয়া যাবে। এভাবে বিষয়টি ধামা চাপা দেয়ার চেষ্ঠা করেছে। স্থানীয় এলাকায় ১২-২০ বছরের লোকজন জানে যে, খুন হয়েছে। হত্যাকারীরা এভাবে তথ্য গোপন করে গিয়েছে। পরবর্তীকে লাশ পাওয়া গিয়েছে।  হত্যাকারীদের আসল উদ্দেশ্য সফল হয়নি বরং আলস্নার ইচ্ছায় সব প্রকাশ পেয়েছে। এলাকার মানুষ এ বিষয়ে স্বসিত্ম পেয়েছে। এ হত্যা বা অপহরণের বিষয়ে সুষ্ঠ তদমত্ম করে দোষী ব্যক্তিদের দৃষ্টামত্মমূলক শাসিত্মর দাবী জানান, যাতে ভবিষ্যতে এ ধরনের কর্মকান্ডের পুনরাবৃত্তি না ঘটে।  এ মামলায় যাতে প্রতৃক দোষী ব্যক্তিদের দায়ী করা হয় এবং এর বাহিরে অতিরিক্ত কাউকে আসামী না করা হয় সে বিষয়ে অফিসার ইন চার্জ, আজমিরীগঞ্জ থানার দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

                             চেয়ারম্যান আউশকান্দি ইউপি জানান, আউশকান্দি থানার অফিসার ইন চার্জ অত্যমত্ম দÿ এবং প্রশংসার দাবীদার। আউশকান্দি ইউপির নোয়াগড়ের মার্ডারের বিষয়ে সত্য উর্দঘাটন করেছেন। তিনি উলেস্নখ করেন যে, তারঁ এলাকায়ও  মার্ডারের ব্যাপারে প্রকৃত দোষীদের দৃষ্টামত্মমূলক শাসিত্মর প্রয়োজন। তবে নিরপরাধ  এবং নীরিহ লোককে যাতে জড়িত করা না হয় সে বিষয়ে অফিসার ইন চার্জ আজমিরীগঞ্জ থানার দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

                             সিদ্ধামত্মঃ বিসত্মারিত আলোচনা শেষে প্রকৃত আপরাধীদের দৃষ্টামত্মমূলক শাসিত্ম এবং নিরপরাধ বা নিরীহ লোক যাতে মামলায় জড়িত না হয় সে বিষয়ে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অফিসার ইন চার্জ আজমিরীগঞ্জ থানাকে অনুরোধ জানিয়ে সর্বসম্মত সিদ্ধামত্ম গৃহীত হয়।  

         আলোচনা ০২ঃ  কারেন্ট জাল ব্যবহার সংক্রামত্মঃ

                 অফিসার ইন চার্জ আজমিরীগঞ্জ থানা সভায় অবহিত করেন যে, বিগত বৎসর সরকারী জরম্নরী সভায় স্পীডবোট যোগে হবিগঞ্জ যাওয়ার প্রাক্বালে কারেন্ট জালে অনেক সমস্যার সৃষ্টি করেছে। কারেন্ট জালের এ সমস্যা যাতে ব্যাপক আকার ধারণ করতে না পারে সে বিষয়ে আমাদের সকলকে সজাগ থাকতে হবে এবং সামগ্রিক প্রচেষ্ঠা চালিয়ে এ অপরাধবোধ নিষ্পত্তি করতে হবে।

                 সভায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার জনান যে, মৎস্য সপ্তাহ চলছে পোনা মাছ বা ঝাটকা যাতে নিধন না করে সে বিষয়ে সকল ইউপি চেয়ারম্যানকে অনুরোধ করেন।

                 এ বিষয়ে সভায় কাকাইলছেও এবং শিবপাশা ইউপি চেয়ারম্যান জানান যে, হাতে নাতে জাল ধরতে গেলে অনেক সমস্যা হতে পারে।  আমরা নিষেধ করতে পারি মর্মে  ইউপি চেয়ারম্যান অভিমত ব্যক্ত করেন ।

                 সভায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার জানান অবৈধভাবে ব্যবহারকারী কারেন্ট জাল ২/১ টা ধরতে হবে। নয়তো এর ব্যাপকতা প্রসার লাভ করবে এবং মৎস্য সম্পদ আহরণে ব্যাঘাত ঘটবে।

                 উপজেলা মৎস্য অফিসার এতে একমত পোষন করেন এবং বর্তমান মৌসুমে পোনা মাছ যাতে নিধন না হয় সে লÿÿ্য বিজ্ঞ  নির্বাহী ম্যাজিস্টে এর মাধ্যমে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে অবৈধভাবে মাছ আহরণকারীদের বিরম্নদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবসাহ গ্রহণের জন্য সভায় প্রসত্মাব করেন।

                  সভায় আইন শৃঙ্খলা কমিটির অন্যতম সদস্য জনাব মোঃ মনোয়ার আলী জানান যে, যারা মাছ শিকার করে তারা ধরা পড়ে না। ধরা পড়ে যারা মাছ বিক্রি করে দেয় ব্যবসায়ীর নিকট, ঐ ব্যবসায়ীগণ। অবৈধভাবে কারেন্ট জাল বিক্রেতা/ব্যবহারকারীদের জাল সিজ করার জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসার আজমিরীগঞ্জ এর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

                 উপজেলা নির্বাহী অফিসার জানান, কারেন্ট জাল অবৈধভাবে বিক্রয় করে এমন স্পট নির্নয় করা প্রয়োজন মর্মে সংশিস্নষ্ট  সকলকে নির্দেশনা প্রদান করেন।

             সিদ্ধামত্ম:  বিসত্মারিত আলোচনা শেষে  মৎস্য সম্পদ রÿার জন্য পোনা/ঝাটকা মাছ যাতে নিধন না হয় সে লÿÿ্য বিজ্ঞ  নির্বাহী ম্যাজিস্টে এর মাধ্যমে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে অবৈধভাবে মাছ আহরণকারীদের বিরম্নদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবসাহ গ্রহণের জন্য সভায় সর্বসম্মত সিদ্ধামত্ম গৃহীত হয়।

                  সভায় আর কোন আলোচনা না থাকায় সভাপতি উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে সভার সমাপ্তি ঘোষনা করেন।

 

উপজেলা নির্বাহী অফিসার

সভাপতি

উপজেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটি

বাহুবল,হবিগঞ্জ

 

নং - ০৫.৬০.৩৬০২.০০১.০৬.০০৩.২০১৩-                                                                               তারিখ : ২৭/০৫/২০১5খ্রি.

 

 

      সদয় জ্ঞাতার্থে ও কার্যার্থে  অনুলিপি প্রেরণ করা হল :

 

০১। মাননীয় সংসদ সদস্য, হবিগঞ্জ-০২ নির্বাচনী এলাকা ও উপদেষ্টা, উপজেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটি, বাহুবল, হবিগঞ্জ।

০২। বিভাগীয় কমিশনার, সিলেট বিভাগ,সিলেট।

০৩। উপসচিব (রাজনৈতিক) স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ সচিবালয়, ঢাকা।

০৪। বিজ্ঞ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট, হবিগঞ্জ।

০৫। পুলিশ সুপার, হবিগঞ্জ।

০৬। অস্থায়ী চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, বাহুবল, হবিগঞ্জ।

০৭। ভাইস চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, বাহুবল, হবিগঞ্জ।

০৮। সহকারী কমিশনার(ভূমি), বাহুবল, হবিগঞ্জ।

০৯-১৩। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা/শিÿা/সমাজসেবা/আনসার ও ভিডিপি/মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা, বাহুবল, হবিগঞ্জ।

১৪। অফিসাস ইন চার্জ, বাহুবল থানা।

১৫। অধ্যÿ, আজমিরীগঞ্জ কলেজ, বাহুবল, হবিগঞ্জ।

১৬-১৭। প্রধান শিÿক, মিয়াধন মিয়া উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়/এ এবিসি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়,বাহুবল, হবিগঞ্জ।

১৮-২২। চেয়ারম্যান, আজমিরীগঞ্জ/বদলপুর/জলসুখা/কাকাইলছেও/শিবপাশা ইউনিয়ন পরিষদ বাহুবল, হবিগঞ্জ।

২৩। উপজেলা কমান্ডার, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, বাহুবল,হবিগঞ্জ।

২৪-২৮। জনাব মিসবাহ্ উদ্দিন ভূঁইয়া, কাকাইলছেও/মো: নাজমুল হাসান,শিবপাশা/মো: আব্দুল কদ্দুছ সেন,বিরাট/মো: মনোয়ার আলী, আজিমনগর/রোকসানা আক্তার, জলসুখা, সদস্য, উপজেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটি, বাহুবল, হবিগঞ্জ।

২৯। সভাপতি, প্রেস ক্লাব, বাহুবল,হবিগঞ্জ।

 

                                                                  স্বা:

 

(মুহাম্মদ লুৎফর রহমান)

উপজেলা নির্বাহী অফিসার

বাহুবল,হবিগঞ্জ